৮০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম

অবশেষে নির্মাণ কাজ শুরু হচ্ছে স্বপ্নের পূর্বাচল ক্রিকেট স্টেডিয়াম। বিশেষায়িত এই স্টেডিয়ামের দর্শক ধারণক্ষমতা কমপক্ষে ৭৫ হাজার। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ স্টেডিয়াম। স্থাপনা পূর্বনির্ধারিত হলেও এতদিন জমি নিয়ে ছিল নানা বিরোধ। সরকারের উচ্চপর্যায়ের হস্তক্ষেপে কেটে গেছে সেই সংকট।

এই বছরের ডিসেম্বর মাসের ভেতরেই জমির একক মালিকানা বুঝে পাবে বিসিবি। এমনটাই নিশ্চিত করেছেন বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটর চেয়ারম্যান মাহবুব আনাম। বেশ কদিন থেকে চলা দন্দ্বে স্টেডিয়ামের জন্য নির্ধারিত ওই জমি নিয়ে বিরোধিতা করে বন বিভাগ। পূর্বাচল সিটিতে পরিবেশগত কারনে পর্যাপ্ত বনভূমি রাখতে এই দাবি করেছিলো তারা।

প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৮০০ কোটি টাকা। ২০২২ সালের ভেতরই শেষ করা হবে নির্মান কাজ। এই কমপ্লেক্সের ভেতর থাকছে অন্তত ৭৫ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতাসম্পন্ন অত্যাধুনিক স্টেডিয়াম, অনুশীলন গ্রাউন্ড, ইনডোর, জিমনেশিয়াম, সুইমিং পুল এবং পাঁচ তারকা হোটেল। নতুন স্টেডিয়ামের প্রায় সবকিছুই হবে অটোমেটেড। পানি নিষ্কাশন থেকে উইকেটের পরিচর্যা সব কিছুতেই মানুষের ব্যবহার কমানো হবে।

সম্প্রতি আইসিসির একজন কিউরেটর এসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন বিসিবির কিউরেটর-কর্মকর্তাদের। সব ঠিকঠাক থাকলে ২০২৩ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন করতে সক্ষম হবে বাংলাদেশ। বিশ্বের বুকে অন্যতম একটি ক্রিকেট স্টেডিয়ামের মালিক হিসেবে গর্ব করতে পারবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও।

এই মুহুর্তে অন্যরা যা পরছেনঃ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১ম ম্যাচে নিজের ওপেনিং পার্টনার হিসেবে যাকে চাইলেন তামিম-আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়েই শুরু হবে এশিয়ার ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় এই আসর। তার আগে সব দলই নিজেদের পরিকল্পনা সাজাচ্ছে বিপক্ষ দলকে ঘায়েল করতে। বাদ নেই বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও। তাই তো প্রায় সপ্তাহ খানেক আগেই টাইগাররা পৌঁছে গিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতে।

কন্ডিশনের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিতে আগেভাগেই চলে যাওয়া। কেন না, এর আগে গত ২৩ বছরে আরব আমিরাতের মাটিতে কোনও ম্যাচ খেলেনি বাংলাদেশ দল। অচেনা কন্ডিশনে কেমন করবে বাংলাদেশ দল? তাছাড়াও এই দলে অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের সঙ্গে আছে নতুন মুখ আর জাতীয় দলে থিতু হতে না পারাদেরও কয়েকজন।

তেমনই তামিমের সঙ্গে ওপেনিং করার জন্য দলে রাখা হয়েছে লিটন দাস আর মোহাম্মদ মিথুনকে। আছেন নতুন মুখ নাজমুল হাসান শান্তও। কিন্তু তামিম কাকে এগিয়ে রাখছেন? আজ বৃহস্পতিবার দুবাইতে গণমাধ্যমকে তামিম ইকবাল জানান, সব কিছু ঠিক থাকলে লিটন দাসই ওপেনিং পার্টনার হবে আমার।

তামিম আরও বলেন, লিটন দাস সাম্প্রতিক সময়ে আমার সঙ্গে ওপেনিং করেছে বেশ কয়েকটি ম্যাচে। ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টিতে বেশ ভালো ব্যাটিং করছে। টিম ম্যানেজমেন্ট যদি চায় এতে অবাক হবার কিছু নেই।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*